হজ্জ কাকে বলে, হজ্জের ফরজ কয়টি

Share this

হজ্জ ইসলামের চতুর্থ রোকন। ‘যিলহজ্জ’ চাঁদের ৯ ই তারিখ পবিত্র মক্কা শরীফে পৌঁছে কাবা ঘর প্রদক্ষিণ, সাফা-মারওয়া পাহাড়ের মাঝে দৌড়ান, আরাফাত ময়দানে অবস্থান ইত্যাদি কতিপয় আমল পালন করাকে ‘হজ্জ’ বলা হয় ।

হজ্জ ফরয হওয়া সম্পর্কে পবিত্র কালামে পাক ঘোষণা করেছেন-

حِجُ الْبَيْتِ مَنِ اسْتَطَاعَ إِليهِ سَبِيلاً . وَلِلّهِ عَلَى النَّاسِ حِجُّ الْبَيْتِ

উচ্চারণ : ওয়া লিল্লাহি ‘আলান্নাসি হিজ্জ্বল বাইতি মানিস্তাত্মাআ ইলাইহি সাবীলা । অর্থ ঃ আর আল্লাহর উদ্দেশ্যে মানুষের উপর বায়তুল্লাহর হজ্জ ফরয, যারা সেদিকে গমনের সামর্থ অর্জন করেছে।

আল্লাহ তা’আলার সন্তুষ্টির জন্য হজ্জ করা ফরয। হাদীসে আছে-

অর্থ : নবী করীম (সাঃ) বলেছেন, যার উপর হজ্জ ফরয হয়েছে অথচ সে হজ্জ আদায় করে নাই, আমি বলতে পারি না সে বেঈমান অবস্থায় মরেছে কিনা। অর্থাৎ সে কাফের হয়ে মরতে পারে।

হজ্জের প্রকার : হজ্জ তিন প্রকার । যথা- ফরয, ওয়াজিব ও নফল ।

যার মধ্যে নিম্নলিখিত শর্তগুলো পাওয়া যাবে; যেমন-সুস্থ, বয়ঃপ্রাপ্ত (বালেগ) হওয়া, জ্ঞানী, স্বাধীন, চক্ষুষ্মান হওয়া এবং যার হজ্জ পালন করে বাড়ীতে পৌঁছা পর্যন্ত স্ত্রী, পুত্র, কন্যা প্রভৃতির আহার, পরিধেয়, বাসস্থান প্রভৃতির কোনরূপ অসুবিধা না হয় এমন ব্যক্তির উপর জীবনে একবার হজ্জ করা ফরয।

স্ত্রীলোকের উপরে হজ্জ ফরয হলে তার স্বামী অথবা কোন নিকটতম মাহরাম সাথে নিয়ে যেতে হবে, মাহরাম ছাড়া যাওয়া যাবে না। কোন ব্যক্তি হজ্জ্বে মানত করলে তা আদায় করা ওয়াজিব । ছওয়াবের আশায় একাধিক হজ্জ করা নফল ।

হজ্জের ফরজ

হজ্জের ফরয ৩টি যথা-

  • এহরাম বাঁধা,
  • আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা,
  • কাবা ঘর তাওয়াফ করা ।

হজ্জে ওয়াজিব

হজ্জে ওয়াজিব ৫টি যথা-

  • মুযদালিফায় রাত্রি যাপন করা।
  • সাফা-মারওয়া পর্বতে দৌড়ান ।
  • মিনায় পাথর নিক্ষেপ করা।
  • মাথা মুড়ান।
  • দূরদেশিদের বিদায়কালে কাবা ঘর তাওয়াফ করা ।

যে ব্যক্তির উপর হজ্জ ফরয হয়েছে, কোন বিশেষ কারণবশত যদি সে হজ্জ করতে না পারে এবং মৃত্যুর পূর্বে কাউকেও হজ্জ করতে বলে গিয়ে থাকে, তবে কোন ব্যক্তি যদি তার হজ্জ আদায় করে তা হলে (অছিয়ত না করে থাকলে) হজ্জ আদায় হবে ।

একে নায়েবী বা বদলী হজ্জ বলে। যে মালদার একবার হজ্জে গিয়েছিল এবং যে গরীব ব্যক্তি ইতিপূর্বে হজ্জে যায়নি, উভয় ব্যক্তি অসিয়তকারীর জন্য হজ্বেবদল করা জায়েয আছে। কিন্তু অসিয়তকারীর নিকট হতে যাবতীয় খরচ নিয়ে যেতে হবে। ছহীহ মতে যিনি জীবনেও হজ্জ করেননি সেই ব্যক্তির জন্য অন্যের হজ্জে বদল আদায় করা মাকরূহ।

আরো পড়ুন:- ইসলামের স্তম্ভ কয়টি ও কি কি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *